মঙ্গলবার   ০৪ আগস্ট ২০২০   শ্রাবণ ২০ ১৪২৭   ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১৪৫

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে উৎপাদন বৃদ্ধির ধারা বজায় রাখুন

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই ২০২০  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনাভাইরাস আমাদের কিছুটা পিছিয়ে দিলেও জনগণ যাতে খাদ্য সংকটে না ভোগে, তা নিশ্চিত করতে মহামারীর মধ্যেও কৃষিতে অর্জিত উৎপাদন বৃদ্ধির যে ধারা তৈরি হয়েছে, তা বজায় রাখতে হবে।

মঙ্গলবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (একনেক) নির্বাহী কমিটির সাপ্তাহিক বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান গণভবনে উপস্থিত ছিলেন। একনেকের অন্য সদস্যরা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি কনফারেন্স রুম থেকে বৈঠকে সংযুক্ত হন।

একনেকের চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা গত ১১ বছরে কৃষি খাতের উন্নয়নে তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ বিশদভাবে তুলে ধরে বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা সারের দাম কমানোর পাশাপাশি ভালো মানের বীজ ও অন্যান্য কৃষি উপকরণ সরবরাহসহ কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে আসছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দুই কোটি কৃষককে কৃষি উপকরণ সরবরাহ করার জন্য কার্ড প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া এক কোটি কৃষক ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলেছেন।’

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর একাধিকবার সারের মূল্য কমিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপি শাসনামলে প্রতি কিলোগ্রাম ডিএপি সারের মূল্য ছিল ৯০ টাকা। কিন্তু এখন কৃষক সেই সার পাচ্ছেন ১২ টাকায়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের পাশে দাঁড়ানো আমাদের কর্তব্য। আমরা যদি সবার ঘরে খাবার নিশ্চিত করতে পারি, তাহলে অন্যান্য সমস্যার সমাধানও করা যাবে।’

তিনি বলেন, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ দলের সব সহযোগী সংগঠনের নেতা ও কর্মীরা বোরো মৌসুমে ধান কাটায় কৃষকদের সহায়তা করেছে। তিনি ধান কাটার সময়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে দলের যেসব নেতাকর্মী মারা গেছেন, তাদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের অর্থনীতিতে কোভিড-১৯ এর আঘাত সত্ত্বেও এসডিজি অর্জনে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের এসডিজি অর্জনের লক্ষ্য রয়েছে। অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় আমরা এসডিজির ১৭টি লক্ষ্যের মধ্যে বেশ কয়েকটি অন্তর্ভুক্ত করেছি এবং তা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছি। ইনশাল্লাহ আমরা এসডিজি অর্জনে সক্ষম হব।’

নিউজ বাংলার আলো
নিউজ বাংলার আলো
এই বিভাগের আরো খবর